বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৯:৩০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৩৮ দিন পর শিশু’র লাশ উদ্ধার লুটপাট-দুর্নীতি রুখতে মুক্তিযুদ্ধের পুনর্জাগরণের ডাক কুমিল্লার মুরাদনগরে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সাংস্কৃতিক ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রাজশাহীর তানোরে আলুর জমিতে আছড়ে পড়ল প্রশিক্ষণ বিমান’ পাইলট আহত অপর প্রশিক্ষণার্থী অক্ষত ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের চলমান মাদক বিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার-৪২ বিজিবির চলমান মাদক বিরোধী অভিযানে গোদাগাড়ীতে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা-হেরোইন উদ্ধার যুবক আটক রংপুরে প্রথম ওমেন্স ড্রিমার ক্রিকেট একাডেমি টুর্নামেন্ট’র খেলা শুরু র‌্যাব-৫ এর অভিযানে বিদেশী পিস্তল’ ওয়ান শুটারগান, গুলি ও ম্যাগজিনসহ ০১ অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেফতার মোহনপুরে পূজা মন্দিরের নিরাপত্তায় কাজ করছে সশস্ত্র আনসার সদস্যরা রংপুর মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশের এএস আই কর্তৃক নবম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ!

গোদাগাড়ী বালিয়াঘাটা আন্তজেলা ফেরিঘাট ইজারায় জালিয়াতির অভিযোগ

 রাজশাহী থেকে :

রাজশাহীর গোদাগাড়ী বালিয়াঘাটা আন্ত:জেলা ফেরিঘাট ইজারায় রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার অফিসের হেডক্লার্ক আইয়ুব হোসেনের কারসাজিতে বাতিল দরপত্রে গোদাগাড়ীর বালিঘাটা গ্রামের মৃত বদরুজ্জামানের ছেলে মনিরুজ্জামানকে টেন্ডার দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। দরপত্র খুলতে নানা ধরণের টানবাহানা শেষে সবার অজ্ঞাতে ওই দরদাতার সিডিউলে কাটাকাটির মাধ্যমে অতিরিক্ত ১০ হাজার টাকা বাড়িয়ে সর্বোচ্চ দরদাতা সাজানো হয়। এভাবে জালিয়াতির মাধ্যমে সর্বোচ্চ দরদাতা ওমর ফারুককে টেন্ডার না দিয়ে অবৈধভাবে মনিরুজ্জামানকে টেন্ডার দেয়া হয়। যা অতীতের যেকোন অনিয়ম-জালিয়াতির রেকর্ডকে ভঙ্গ করেছে।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহী প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন সিডিউল দাতারা। সংসাদ সম্মেলনে ফেরিঘাট ইজারার সিডিউল দাতাদের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন গোদাগাড়ী এলাকার মৃত আলকাশ উদ্দিনের ছেলে ওমর ফারুক। এ সময় ফেরিঘাট ইজারার তিনজন দরদাতার মধ্যে এনামুল হকও উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত অভিযোগে সিডিউলদাতা ওমর ফারুক বলেন,  বাংলা ১৪২৬ সনে এক বছরের জন্য গোদাগাড়ী বালিয়াঘাটা আন্তজেলা ফেরিঘাট ইজারার বিজ্ঞপ্তি পেয়ে আমরা মোট তিনজন দরপত্র ক্রয়করে গত ২১শে মার্চ বিভাগীয় কমিশনার এর কার্যালয়ে টেন্ডার বাক্সে সর্বমোট তিনটি দরপত্র ফেলা হয়। এবং টেন্ডার জনসম্মুখে ২৪শে মার্চ খোলার কথা থাকলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জে উপজেলা নির্বাচনে কর্মকর্তারা ব্যস্ত থাকায় গত ১ এপ্রিল টেন্ডার জনসম্মুখে খোলার কথা বলেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার অফিসের হেডক্লার্ক আইয়ুব হোসেন। ১ এপ্রিল রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার উপস্থিত না থাকায় আবারো টেন্ডার খোলার দিন পিছিয়ে ৯ এপ্রিল সকল দরদাতাদের ফোনের মাধ্যমে ডেকে টেন্ডার জনসম্মুখে খোলার কথা বলেন হেডক্লার্ক আইয়ুব হোসেন। টেন্ডার খোলার বিষয়ে রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার অফিসের কেউ আমাদের সাথে যোগাযোগ না করলে আমরা ১৫ ই এপ্রিল সোমবার রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার অফিসের হেডক্লার্ক আইয়ুব হোসেনের সাথে কথা বলে জানতে পারি গোদাগাড়ীর বালিঘাটা গ্রামের মৃত বদরুজ্জামানের ছেলে মনিরুজ্জামানকে একলক্ষ তেষট্টি হাজার টাকায় বালিয়াঘাটা আন্তজেলা ফেরিঘাটটি ইজারা দেয়া হয়েছে।

দরপত্র দাতাদের না জানিয়ে এককভাবে মনিরুজ্জামানকে কেন ফেরিঘাটটি ইজারা দেয়া হয়েছে জানতে চাইলে বিভাগীয় কমিশনার অফিসের হেডক্লার্ক আইয়ুব বলেন, ‘আমার অফিসের কাজ আমি যাকে মনে করবো তাকে দেবো আপনাদের যা করার তা করেন।’ এ সময় দরপত্রদাতা কত টাকায় ফেরিঘাটটি ইজারা নিয়েছেন জানতে চাইলে তিনি মনিরুজ্জামানের দরপত্রে লক্ষিপুর জনতা ব্যাংকে পেঅডার নং ১৫৪৫২৮৭ এর মাধ্যমে একলক্ষ তেষট্টিহাজার পাঁচশত টাকার সর্বচ্চো দরদাতা দেখিয়ে পঞ্চাশ হাজার টাকা জমা  দেয়া হয়েছে যা কাটাকাটির পূর্বে ছিলো এক লক্ষ তেপান্ন হাজার পাঁচশত টাকার দরপত্রটি দেখান।

যেখানে কোনভাবেই দরপত্র কাটাকাটি করা যাবে না সেখানে বিভাগীয় কমিশনার অফিসের হেডক্লার্ক আইয়ুব হোসেনের যোগসাজসে দরপত্র কাটাকাটি করে দশ হাজার টাকা বেশি করে মনিরুজ্জামানকে ফেরিঘাট ইজারারা দেয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে মনিরুজ্জামানের কাটাকাটি করা দরপত্রটি বাতিল করে সর্বচ্চো দরদাতা ওমর ফারুকের নামে ফেরিঘাটটি ইজারারা দেয়ার আবেদন জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ফেরিঘাট ইজারার দরদাতা এনামুল হক ও ওমর ফারুক আরো জানান, আমরা আগামী বৃহস্পতিবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ও  জেলা প্রশাসক বরাবর রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার অফিসের হেডক্লার্ক আইয়ুব হোসেন ও মনিরুজ্জামানের নামে এমন অন্যায়ের বিচার চেয়ে ও সর্বচ্চো দরদাতা ওমর ফারুকের নামে ফেরিঘাটটি ইজারারা দেয়ার আবেদন জানাবেন।

এ প্রসঙ্গে রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার অফিসের হেডক্লার্ক আইয়ুব হোসেনের মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে কিছু বলার নেয়। কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গত ২৪ তারিখে গোদাগাড়ীর বালিঘাটা গ্রামের মৃত বদরুজ্জামানের ছেলে মনিরুজ্জামানকে দেয়া হয়েছে । আর সেদিন আমি অফিসে ছিলাম না।’ কমিটিতে কারা ছিলেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিভাগীয় কমিশনার, গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিমুল আক্তারসহ অনেকে ছিলেন।’ তবে অপর একটি সূত্র জানায়, ওইদিন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সংক্রান্ত কাজে রাজশাহীর বাইরে ছিলেন।

রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার (০১৭১৩-২০২০৪০) ও গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিমুল আক্তারকে (০১৭৬১-৫৯১২২১) একাধিকবার ফোন করলে তারা ফোন রিসিভ করেন নি।

 

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে ভাগ করুন

খন্দকার ভবন তানোর থানার মোড় প্রাইমারী স্কুল সংলগ্ন তানোর, রাজশাহী থেকে প্রকাশিত। মোবাইল: ০১৭১৫-২৯৭৫২৪, ০১৭১৬-৮৪৪৪৬৫, ০১৯২০-৪৪০১১২ E-mail: cbnews71@gmail.com Web: www.cybernews71.com Facebook: www.facebook.com/cbnews71 www.twitter.com/CyberNews71 Youtube: //www.youtube.com/cbnews71

© কপিরাইট : খন্দকার মিডিয়া গ্রুপ

 বাল্যবিবাহ রোধ করুন, মাদক মুক্ত সমাজ গড়ুন।

ব্রেকিং নিউজ :