বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৩৮ দিন পর শিশু’র লাশ উদ্ধার লুটপাট-দুর্নীতি রুখতে মুক্তিযুদ্ধের পুনর্জাগরণের ডাক কুমিল্লার মুরাদনগরে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সাংস্কৃতিক ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রাজশাহীর তানোরে আলুর জমিতে আছড়ে পড়ল প্রশিক্ষণ বিমান’ পাইলট আহত অপর প্রশিক্ষণার্থী অক্ষত ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের চলমান মাদক বিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার-৪২ বিজিবির চলমান মাদক বিরোধী অভিযানে গোদাগাড়ীতে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা-হেরোইন উদ্ধার যুবক আটক রংপুরে প্রথম ওমেন্স ড্রিমার ক্রিকেট একাডেমি টুর্নামেন্ট’র খেলা শুরু র‌্যাব-৫ এর অভিযানে বিদেশী পিস্তল’ ওয়ান শুটারগান, গুলি ও ম্যাগজিনসহ ০১ অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেফতার মোহনপুরে পূজা মন্দিরের নিরাপত্তায় কাজ করছে সশস্ত্র আনসার সদস্যরা রংপুর মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশের এএস আই কর্তৃক নবম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ!

নড়াইলে গ্রাহকের জমা করা সাড়ে ৩১ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৪ এনজিও কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল  থেকে :

নড়াইলে গ্রাহকের জমা করা সাড়ে ৩১ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে চার এনজিও কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় ১১ জুন ২০১৯ ইং রাতে সিআইডির উপ-পুলিশ পরিদর্শক অলক চন্দ্র হালদার এনজিওর ১৬ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে মামলা করেছেন।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন ‘চলন্তিকা যুব সোসাইটি’ নামের এনজিওর মিজানুর রহমান (৪৩), সজল দাস (২৮), প্রণব দাস (৩২) ও মিলন দাস (৫০)। মঙ্গলবার খুলনা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

নড়াইলের কালিয়া থানা স‚ত্রে জানা গেছে, ‘চলন্তিকা যুব সোসাইটি’ নামের এই এনজিওর ম‚ল শাখা খুলনার সোনাডাঙ্গায়। ২০০৪ সালে খুলনার পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোতে ৯টি কার্যালয় খোলে তারা। এনজিওটি কয়েকগুণ মুনাফার লোভ দেখিয়ে ডিপিএস ও এফডিআরের নামে কয়েক হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে আমানত গ্রহণ করে। কিন্তু নানা অজুহাতে লভ্যাংশ প্রদানে গড়িমসি করতে থাকে সংস্থাটি। গ্রাহকেরা আমানত ফেরত চাইলে সেটিও ফেরত না দিয়ে ২০১৮ সালের মার্চ মাসে কালিয়া কার্যালয় বন্ধ করে কর্মকর্তারা উধাও হয়ে যান। এরপর একে একে অন্য শাখাগুলোও বন্ধ করে গ্রাহকদের ৩১ কোটি ৫৯ লাখ ৫৭ হাজার ৭৪০ টাকা আমানত নিয়ে পালিয়ে যান কর্মকর্তারা।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, প‚র্ব পরিকল্পিতভাবে প্রতারণার উদ্দেশ্যে এই এনজিও খুলে টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে। এনজিওটির চেয়ারম্যান মোঃ খবিরুজ্জামান ও নির্বাহী পরিচালক মোঃ সারোয়ার হুসাইনের নামে বিভিন্ন জেলায় ৪০টি মামলার তদন্ত চলছে। মামলায় এই দুজনসহ প্রধান কার্যালয়ের ১১ জন ও শাখা কার্যালয়ের চারজন কর্মকর্তাকে আসামি করা হয়েছে।

সিআইডির উপপুলিশ পরিদর্শক অলক চন্দ্র হালদার আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান, ২০১৮ সালের মার্চ মাসে প্রধান কার্যালয়সহ সব শাখা বন্ধ করে কর্মকর্তারা উধাও হন। এনজিওটির সব কার্যক্রম তখন থেকে বন্ধ রয়েছে। তবে দেশের অন্যান্য জেলায় এর আরও শাখা ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। তদন্ত শেষে টাকা আত্মসাতের প্রকৃত পরিমাণ জানা যাবে। গ্রেপ্তারকৃতদের আদালতের মাধ্যমে আজ মঙ্গলবার কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সাইবার ‍নিউজ একাত্তর/ ১২ জুন, ২০১৯ ইং/হাফিজুল

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে ভাগ করুন

খন্দকার ভবন তানোর থানার মোড় প্রাইমারী স্কুল সংলগ্ন তানোর, রাজশাহী থেকে প্রকাশিত। মোবাইল: ০১৭১৫-২৯৭৫২৪, ০১৭১৬-৮৪৪৪৬৫, ০১৯২০-৪৪০১১২ E-mail: cbnews71@gmail.com Web: www.cybernews71.com Facebook: www.facebook.com/cbnews71 www.twitter.com/CyberNews71 Youtube: //www.youtube.com/cbnews71

© কপিরাইট : খন্দকার মিডিয়া গ্রুপ

 বাল্যবিবাহ রোধ করুন, মাদক মুক্ত সমাজ গড়ুন।

ব্রেকিং নিউজ :